জাতীয়

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের উদ্যোগে নেওয়া আশ্রয়ণ প্রকল্প- অনিয়ম, অবহেলা ও দুর্নীতির বিষয়ে কঠোর অবস্থান নিয়েছে সরকার।

 

বিশেষ প্রতিনিধি :
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অগ্রাধিকারমূলক এই প্রকল্পে সারা দেশে পৌনে ৯ লাখ গৃহহীন ও ভূমিহীন পরিবারকে ঘর দেওয়ার লক্ষ্য নিয়ে গত বছর কাজ শুরু হয়।

এরই মধ্যে দেশের বিভিন্ন উপজেলায় প্রায় সোয়া লাখ উপকারভোগীকে ঘর বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে। এসব ঘরের বিষয়ে বিভিন্ন সময় গণমাধ্যমে অনিয়ম-দুর্নীতির কথা উঠে এলে সে বিষয়ে তদন্তে নামেন প্রকল্পসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা।

তদন্তে আপাতত ৩৬টি উপজেলার অনিয়মের তথ্য উঠে এসেছে। তারই ভিত্তিতে ইউএনও ও এসি ল্যান্ড হিসেবে দায়িত্ব পালনকারী পাঁচজন কর্মকর্তাকে ওএসডি করা হয়েছে। প্রকল্প সূত্র জানায়, এটা মাত্র শুরু। তদন্তে শতাধিক কর্মকর্তার নাম এসেছে। পর্যায়ক্রমে সবার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মুজিববর্ষ উপলক্ষে একাধিক মন্ত্রণালয় ও বিভাগের সমন্বয়ে আশ্রয়ণ প্রকল্পের মাধ্যমে গরিব অসহায় মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে এই প্রকল্প বাস্তবায়নের নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রকল্পটিতে পৃথকভাবে কোনো অর্থ বরাদ্দ না দিয়ে সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগকে সমন্বিত করে ঘর বানিয়ে দেওয়া হচ্ছে। মাঠ পর্যায়ে কাজটির দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে উপজেলা নির্বাহী অফিসারদের (ইউএনও) নেতৃত্বাধীন একটি কমিটিকে। কমিটিতে সদস্য হিসেবে আছেন উপজেলা প্রকৌশলী, এসি ল্যান্ড, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) ও সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান।

সরকারি খাসজমিতে প্রকল্পের প্রথম দফায় নির্মাণ করা হয় ৩৪টি ঘর, যা গত ২৩ জানুযারি সরাসরি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যুক্ত হয়ে উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রথম দফায় নির্মিত ঘরগুলো নির্মাণে তেমন কোনো বড় ধরনের অনিয়ম ও দুর্নীতি করা হয়নি। বরং প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য নির্মিত এসব ঘরের টিনের ছাউনিতে কাঠের পরিবর্তে লোহার অ্যাঙ্গেল ব্যবহার করা হয়। প্রকল্পের দ্বিতীয় দফায় ৬০টি ঘর নির্মাণে অনিয়ম ও দুর্নীতি করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। ঘরের দেয়ালে ও বারান্দার পিলারে ফাটল ধরেছে। সামান্য বৃষ্টিতেই পড়ছে বৃষ্টির পানি। গ্রিলের দরজা-জানালার পাল্লাগুলো খুলে পড়ছে। বেশির ভাগ ঘরেরই গ্রিলের দরজা-জানালা ঠিকভাবে আটকানো যায় না।

প্রধানমন্ত্রীর দেয়া উপহার আশ্রয়ণ প্রকল্পের গৃহ নির্মাণে অনিয়ম-অসঙ্গতি ও অগ্রগতি পরিদর্শনে মাঠে নামছে পাঁচটি টিম। খোদ প্রকল্প পরিচালকের নেতৃত্বে উচ্চ পর্যায়ের এসব টিম দুইদিনে ঢাকা, রাজশাহী, সিলেট, রংপুর, ময়মনসিংহ বিভাগের বিভিন্ন জেলা-উপজেলা সফর করবেন।

প্রধানমন্ত্রী কার্যালয় সূত্র বলছে, শুক্রবার (৯ জুলাই) সকালে টিমগুলো প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে সারাদেশের বিভিন্ন স্পটের পরিদর্শন করতে যাবে। তারা শনিবার রাতে ফিরবেন। ফিরে এসে এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন প্রধানমন্ত্রী বরাবর উপস্থাপন করবেন।

প্রকল্প সূত্র বলছে, অতিবৃষ্টিসহ প্রাকৃতিক দুর্যোগে অনেক জায়গায় প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। পাশপাশি কিছু জায়গায় নির্মাণেও অনিয়ম ধরা পড়েছে। এসব ঘর দ্রুতই মেরামতের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেই মেরামত কাজ দেখতেই এই সফর। পাশপাশি এই প্রকল্পের কোনো সমস্যা থাকলেও মাঠ পর্যায়ে পরিদর্শনের মধ্যদিয়ে তুলে আনা হবে।

প্রধানমন্ত্রীর মূখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস সাংবাদিকদের বলেন, ‌‘এটি প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্নের প্রকল্প। এর সঙ্গে আমাদের সবার আবেগ ভালোবাসা মানবিকতা জড়িয়ে আছে। এই প্রকল্প বাস্তবায়নে অনিয়ম ও অবহেলার প্রমাণ পাওয়া গেলে শাস্তি পেতেই হবে। কাউকেই বিন্দু পরিমাণ ছাড় দেয়া হবে না।’

উল্লেখ্য, আশ্রয়ণ প্রকল্পের আওতায় এ পর্যন্ত প্রায় ১ লাখ ২০ হাজার পরিবারকে ২ শতাংশ খাস জমিসহ দুই কক্ষবিশিষ্ট আধাপাকা ঘর করে দেয়া হয়েছে। আরও ২ লাখ ৯৩ হাজার ৩৬১ টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার পাবে বাড়ি। এ ছাড়াও জমি আছে ঘর নেই অথবা অত্যন্ত জরাজীর্ণ ঘর, এ রকম ৫ লাখ ৯২ হাজার ২৬১টি পরিবারকে ঘর করে দেবে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আশ্রয়ণ-প্রকল্প ২।

এ জাতীয় আরও সংবাদ

সারা দেশে একযোগে টিকাদান শুরু কাল, প্রস্তুত ১০১৫ কেন্দ্র

todaysylhet24

আল্লামা শফীকে নিয়ে ফেসবুকে কটূক্তি, আলাউদ্দিন জিহাদী গ্রেফতার

todaysylhet24

বিকাশ থেকে আর কেউ টাকা নিতে পারবে না

todaysylhet24

Leave a Comment